বৃহস্পতিবার, মে ৪, ২০২৩




ফতুল্লায় নিখোঁজ মেয়েকে খুঁজতে গিয়ে হামলার শিকার পরিবারের ৩ জন

নারায়ণগঞ্জ প্রতিদিন:

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় ১৪ বছরের কিশোরী নিখোঁজের ব্যাপারে

খোঁজ নিতে গিয়ে একই পরিবারের ৩ জনকে পিটিয়েছে অভিযুক্তরা।‌‌ ঘটনাটি ঘটেছে সদর উপজেলার ফতুল্লা থানাধীন পিলকুনি পাঁচতলার ওকিল বাড়ীর মোড় ইব্রাহীম মিয়ার বাড়ীতে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী লাকী বেগম ফতুল্লা মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করে। তবে অভিযোগের বিষয়ে কোনো গুরুত্ব দেয়া হয়নি বলে দাবি করেন ভুক্তভোগী।

আমি তা উল্লেখ করা হয়, মোসাঃ লাকি বেগম (৪৫), পিতা- মোঃ সুলতান দেওয়ান, পূর্ব দক্ষিণ শিয়াচর ইয়াদআলী মসজিদ সংলগ্ন, থানা: ফতুল্লা, জেলা: নারায়ণগঞ্জ। থানায় হাজির হইয়া বিবাদী- ১। মোঃ সোহাগ (২৩), ২। সাহারা আক্তার (১৬), উভয় পিতা- অজ্ঞাত, উভয় সাং- পিলকুনি পাঁচতলার ওকিল বাড়ীর

মোড় ইব্রাহীম মিয়ার বাড়ীর ভাড়াটিয়া, থানা- ফতুল্লা, জেলা- নারায়নগঞ্জদ্বয় সহ আরও অজ্ঞাতনামা ৫/৬ জন
বিবাদীদের বিরুদ্ধে এই মর্মে অভিযোগ দায়ের করিতেছি যে, উক্ত ২নং বিবাদীনির সহিত আমার মেয়ে লামিয়া আক্তার (১৪) পড়াশোনা করে। ২নং বিবাদীনি আমার মেয়েকে উসকানি দিয়া টিকটক সহ বিভিন্ন সময় রাস্তাঘাটে উশৃঙ্কল কার্যকলাপ সহ বিভিন্ন রকমের অসামাজিক কার্যক্রম করাইতো। এরই ধারাবাকিতায় গত- ০২ মে বিকাল অনুমান ৪ টার সময় ২নং বিবাদীনি আমার মেয়েকে কোচিংয়ে যাওয়ার সময় দাপাইদ্রাকপুর জাহাঙ্গীরের পুরান বাড়ীতে খারাপ ও বখাটে ছেলেদের হাতে আমার মেয়েকে তুমি দিয়া বিবাদীনি কৌশলে ঘটনাস্থল হইতে চলিয়া যায়। পরবর্তীতে আমি আমার মেয়েকে না পাইয়া বিবাদীদের বাসায় গিয়া আমার মেয়ের খোঁজ করিলে তাহারা টালবাহানা স্বরূপ কথাবার্তা বলে। পরবর্তীতে আমি লোকজন মারফত আমার মেয়েকে খারাপ ছেলেদের হাতে তুলিয়া দেওয়ার বিষয়টি জানিতে পারিয়া একই তারিখ রাত
অনুমান ১০.০০ ঘটিকার সময় আমি আমার স্বামী মোঃ ফাহিম (৫০) ও আমার ছেলে মোঃ রবিন (২৮) কে বিবাদীদের বাসায় গিয়া তাহাদের কাছে আমার মেয়ের বেপারে জিজ্ঞাসা করিলে বিবাদীগণ আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হইয়া এলোপাথারী কিলঘুষি লাথী মারিয়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলাফোলা ও গুরুতর জখম করে। অতঃপর উক্ত ১নং বিবাদী তাহার হাতে থাকা ধারালো অস্ত্র দ্বারা আমার ছেলেকে হত্যার উদ্দেশ্যে মাথা লক্ষ করিয়া
কোপ দিলে উহা লক্ষভ্রষ্ট হইয়া আমার ছেলের নাকের উপর গুরুতর কাটা রক্তাক্ত জখম হয়। অতঃপর সকল
বিবাদীগণ একত্রিত হইয়া লাঠিশোঠা দিয়া আমাকে এলোপাথারী মারধর করিয়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলাফোলা ও গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে। মারধরের একপর্যায়ে ১নং বিবাদী আমার গলায় থাকা আট আমি ওজনের একটি স্বর্ণের চেইন যাহার ও অজ্ঞাতনামা একজন বিবাদী আমার ছেলের গলা হইতে আট আমি ওজনের একটি চেইন মোট দুইটি চেইন যাহার মূল্য অনুমান ৯০,০০০/- (নব্বই হাজার) টাকা টান মারিয়া
নিয়া যায়। অজ্ঞাতনামা আরও ২ জন অজ্ঞাতনামা বিবাদীদ্বয় আমার ছেলের ব্যবহৃত মোবাইল যাহার মূল্য
অনুমান ২০,০০০/- (বিশ হাজার) টাকা ও আমার ছেলে মানিব্যাগ যাহার মধ্যে ৫,০০০/- (পাঁচ হাজার) টাকা
ছিল কৌশলে নিয়া যায়। একপর্যায়ে আশেপাশের লোকজন আগাইয়া আসিলে বিবাদীগণ আমাদের এই বলিয়া
হুমকি প্রদান করে যে, যদি এই বেপারে কোন প্রকার বাড়াবাড়ি করিস কিংবা কোন থানা পুলিশ করিস তাহা
হইলে তোদেরকে যেখানে পাবো প্রাণে মারিয়া ফেলিবো মর্মে হুমকি প্রদান করে। বিবাদীদের এহেন কার্যকলাপের দরুন আমি কোন উপায়ন্তর না পাইয়া বিষয়টি এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিদের সহিত আলোচনা করে থানায় অভিযোগ দায়ের করে লাকী বেগম।

এয বিষয়ে তদন্ত কর্মকর্তা ফতুল্লা মডেল থানার উপপরিদর্শক কাজী রেজাউল ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানালেন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × one =

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর